হযরত ওমর (রাঃ)এর ঘটনা

হযরত আলী (রাযিঃ) বলেন, হযরত ওমর (রাঃ) লােকদেরকে বলিলেন, আমাদের নিকট এই মাল হইতে কিছু বাঁচিয়া গিয়াছে। তােমাদের কি রায়, আমি উহা কোথায় খরচ করিব? লােকেরা বলিল,আমীরুল মুমিনীন! আপনি সর্বদা আমাদের সর্বসাধারণের কাজে ব্যস্ত থাকেন, যেই কারণে নিজের পরিবার পরিজনের দেখাশুনা ও নিজের কাজকর্ম ও ব্যবসা করার সুযােগ পান না, অতএব এই মাল আপনিই গ্রহণ করুন। হযরত ওমর (রাঃ) আমাকে বলিলেন, তুমি কি বল ?

আমি বলিলাম, লােকেরা তাে আপনাকে পরামর্শ দিয়াছে। তিনি বলিলেন, না, তুমি নিজের অন্তরের কথা বল। আমি বলিলাম, আপনি নিজের একীনকে কেন ধারণায় পরিবর্তন করিতেছেন? (অর্থাৎ এই মাল যে আপনার নহে তাহা ভালভাবে জানা থাকা সত্ত্বেও আপনি কেন ধারণা করিতেছেন যে, এই মাল আপনার হইতে পারে এবং লােকদের নিকট পরামর্শ চাহিতেছেন ?) হযরত ওমর (রাঃ) বলিলেন, তুমি যাহা বলিতেছ উহার সপক্ষে তােমাকে দলীল বা প্রমাণ পেশ করিতে হইবে। আমি বলিলাম, অবশ্যই আল্লাহর কসম, আমি উহার প্রমাণ পেশ করিব।

আপনার কি স্মরণ আছে যে, একবার নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি

ওয়াসাল্লাম আপনাকে যাকাতের মাল উসূল করার জন্য পাঠাইয়া ছিলেন। আপনি যখন হযরত আব্বাস ইবনে আবদুল মুত্তালিব (রাঃ)এর নিকট যাকাত উসূল করিতে গেলেন তখন তিনি আপনার নিকট যাকাত প্রদান করিতে অস্বীকার করিলেন। এই কারণে আপনাদের উভয়ের মধ্যে তর্কবিতর্ক হইয়াছিল। তারপর আপনি আমাকে বলিলেন, আমার সঙ্গে নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের খেদমতে চল, আমরা তাঁহাকে হযরত আব্বাস (রাঃ) যাহা করিয়াছেন তাহা জানাই। আমরা নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের নিকট যাইয়া তাহাকে অত্যন্ত অপ্রসন্ন দেখিয়া ফিরিয়া আসিলাম।

পরদিন পুনরায় তাহার নিকট হাজির হইয়া তাহাকে অত্যন্ত প্রসন্নমনা দেখিলাম । আপনি তাঁহাকে হযরত আব্বাস (রাঃ)এর আচরণ সম্পর্কে বলিলেন, নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আপনাকে বলিলেন, তোমার কি জানা নাই যে, মানুষের চাচা তাহার পিতা সমতুল্য হইয়া থাকে ? অতঃপর আমরা তাহাকে বলিলাম, আমরা প্রথম দিন আপনার খেদমতে হাজির হইয়া দেখিলাম আপনার মন অত্যন্ত অপ্রসন্ন রহিয়াছে, কিন্তু পরদিন আসিয়া দেখিলাম, আপনি হাসিখুশি আছেন।

তিনি বলিলেন, প্রথম দিন তােমরা যখন আমার নিকট আসিয়াছিলে তখন আমার নিকট সদকার দুইটি দীনার অবশিষ্ট রহিয়া গিয়াছিল। এই কারণে তোমরা আমার মন খারাপ দেখিয়াছ। পরবর্তী দিন যখন তােমরা আমার নিকট আসিয়াছ তখন আমি সেই দীনার যথাস্থানে ব্যয় করিয়া দিয়াছি। এই কারণে আমাকে হাসিখুশী দেখিয়াছ।

হযরত ওমর (রাঃ) (হযরত আলী (রাঃ)কে) বলিলেন, তুমি ঠিক বলিয়াছ। আল্লাহর কসম, তুমি প্রথম আমাকে যে কথা বলিয়াছ এবং পরবর্তী যে ঘটনা শুনাইয়াছ উহার জন্য আমি তােমার শুকরিয়া আদায় করিতেছি।